Friday, January 22, 2016

Industry scenario in West Bengal under Mamata Banerjee, lots of prospects in Bengal & Bengal is growing in spite of Left parties & paid media’s anti-propaganda. A Bengali article by Smt.Sreeparna Roy.


বাম সরকারের মহান অবদানে ৩৪ বছরে বাংলার শুকিয়ে যাওয়া শিল্পাঙ্গনের মরুভূমিকে বছরের পরিবর্তনের সরকারের নতুন ভাবে সজীব করে তোলার প্রচেষ্টা.......
 
"রাজ্য সরকারের দাবী" বলে দায় এড়ানো কৌশলী প্রচারে নয়... বাজারি সংবাদ মাধ্যমের অতৃপ্ত চাহিদার জ্বালা মেটানোর ব্যাঙ্গাত্মক মিথ্যা প্রচারেও নয়... সাফল্যের নিশব্দ জয়যাত্রায় বাংলার শিল্পায়ন কর্মসংস্থানের বদলে যাওয়া পরিবর্তিত চালচিত্রের আসল রুপ....

বিনিয়োগের উৎসাহদানে ল্যান্ড ব্যাঙ্ক, আবেদন প্রক্রিয়ায় সিঙ্গল উইন্ডো, ১৪ ওয়াই ধারার সঠিক প্রয়োগ, সঠিক সময়ে শিল্প সংস্থা গুলিকে ইনসেনটিভ প্রদান,অর্থ জমা করার দিনের মধ্যে জমির পজেশন হস্তান্তর করা, নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুত সরবরাহ বাংলার শিল্পের সামগ্রিক ছবিটাই বদলে দিয়েছে।

প্রতিটি নতুন প্রকল্পের আবেদন আসা মাত্র সেই প্রকল্পের সাথে একজন করে সরকারি অফিসার কে প্রজেক্ট অফিসার হিসেবে যুক্ত করে দেওয়া হচ্ছে প্রকল্পের দ্রুত রূপায়ণের স্বার্থে এবং বিনিয়োগকারীর সাথে সবসময় যোগাযোগ রেখে তাদের সুবিধা অসুবিধার দিকে নজর দেওয়ার জন্য।
মৌলিক ভাবনায় বাংলার শিল্পের উন্নয়নে রাজ্যের শিল্পপতিদের নিয়েই টাস্ক ফোর্স গঠন করে তাদের হাতেই দিক নির্দেশ এর ভার সঁপে দিয়ে রাজ্য সরকার শিল্পের উন্নয়নে তার সদিচ্ছার প্রমাণে মাস্টার স্ট্রোক দিয়েছেন।

পরিবর্তনের চার বছরে ৮৪,২১১.০০ কোটি টাকার নতুন শিল্প বিনিয়োগ এই বাংলায়…. যেগুলোর মধ্যে কিছু কিছু সংস্থা ২০১৩-১৪ আর্থীক বছরে উৎপাদন শুরু করেছে (ডালমিয়া গ্রুপের ৬০০ কোটির সিমেন্ট কারখানা, জনসন এর সেরামিক কারখানা,হলদিয়ায় ৩৪০০ কোটি টাকা বিনিয়োগে সি এস সির তাপ বিদ্যুত কেন্দ্র ইত্যাদি), কিছু সংস্থা যেমন সি এল, একস্প্রো, আই এফ বি এগ্রো , উৎকর্ষ পাইপ , বেঙ্গল বেভারেজ ২০১৪-১৫ আর্থিক বছরে তাদের উৎপাদন শুরু করে দিয়েছে। বাকিগুলো নির্মাণাধীন। ম্যাট্রিক্স,সেল, এন টি পি সি,টাটা হিতাচি, ফিউচার গ্রুপ, রিলায়েন্স,টাটা মেটালিক্স, কেভেন্টার্স,আই টি সি,টাটা হাউসিং,চাংগী ,কেম্পিনস্কির( যেগুলোর নির্মান কাজ চলছে),মুকেশ আম্বানির রিলায়েন্স জিও জি, জিন্দাল সিমেন্ট এবং জিন্দাল পাওয়ার প্লান্ট ইত্যাদি বহু নামী দামী শিল্প সংস্থার বিনিয়োগে রাজ্যের অর্থনৈতিক এবং সামাজিক পরিকাঠামোর আমুল পরিবর্তন নিয়ে আসবে আগামী কয়েক বছরের মধ্যে।জিন্দালদের সিমেন্ট ফ্যাক্টারি এবং পাওয়ার প্ল্যান্ট প্রকল্পের কাজ চালু হয়ে গেছে শালবনিতে I এই উপরোক্ত শিল্প সংস্থার বিনিয়োগে বিশাল পরিমানে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে রাজ্যে।এছাড়া আরও ,৯৮,৬২৭ কোটি টাকার বিনিয়োগের প্রস্তাব দ্রুত কার্যকর করার লক্ষে অনেকটাই এগিয়ে গেছে বর্তমান সরকার I

নৈহাটিতে সরকারি উদ্যোগে নির্মীয়মান ইলেক্ট্রনিক্স হাব যা পূর্ব ভারতের সবচেয়ে বড় ইলেক্ট্রনিক্স হাবে পরিনত করার রাজ্য সরকারের প্রচেষ্টায় ইতিমধ্যেই দেশ বিদেশের বড় বড় ইলেক্ট্রনিক্স কোম্পানীগুলি তাদের বিনিয়োগ সুনিশ্চিত করেছে।

ক্ষুদ্র, মাঝারি ছোট শিল্পে বাংলা ২০১৩-১৪ আর্থিক বছরে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ভারতে প্রথম স্থান লাভ করেছে। এই ক্ষেত্রে ব্যাপক সাফল্যের প্রমান পাওয়া যায় ব্যাঙ্ক লগ্নির পরিমান ১০৫ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে ৪৩৩১ কোটি থেকে ৮৯০০ কোটি তে পৌছে যাওয়া। এই জয়যাত্রায় ৫০,৩৭০ জন মানুষের কর্মসংস্থান নিশ্চিত হয়েছে এই তিন বছরে।

বাংলার সম্ভাবনাময় শিল্পের মধ্যে অন্যতম আই টি সেক্টরে টি সি এসের রাজার্হাটের প্রকল্পের কাজ এগিয়ে চলেছে দ্রুতগতিতে যেখানে বছরে ২০,০০০ কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হতে চলেছে, এছাড়াও উইপ্রো কগনিজেন্ট আই টি সি ইনফোটেক তাদের বিপুল বিনিয়োগের প্রস্তাব সরকারের কাছে রেখেছেন যা বাস্তবায়নে রাজ্য সফটওয়ার রপ্তানিতে দেশের মধ্যে অন্যতম স্থান লাভ করবে।

বেঙ্গল বীরভূম কোল ফিল্ডস লিমিটেড নামে নতুন একটা কোল কোম্পানী তৈরী হয়েছে যার প্রধান শেয়ার হোল্ডার হলো আমাদের পশ্চিম বঙ্গ.. এছাড়াও পাঞ্জাব কর্নাটক উত্তর প্রদেশ তামিলনাড়ু বিহার এই পাচ রাজ্য এবং বেসরকারী সংস্থা সৎলুজ জল বিদ্যুত নিগম লিমিটেড হলো এই নতুন কোম্পানীর অন্যান্য শেয়ার হোল্ডার। রাজ্যের বীরভূম জেলার দেওচা পাচামী এলাকায় এই কোল কোম্পানী অবণ্টিত কোল ব্লকে নিজেদের পরিকাঠামো গড়ে তুলবে কয়লা উত্তোলনের জন্য যেখানে অনুমান করা হচ্ছে প্রায় বিলিয়ন টনস কয়লা মজুত আছে। কয়েক লক্ষ প্রত্যক্ষ কর্ম সংস্থান ছাড়াও বিশাল এলাকার আর্থ সামাজিক পরিকাঠামোর ব্যাপক উন্নয়নের হাত ধরে সমগ্র বীরভূম জেলার চেহারাটাই বদলে যাবে। অপ্রত্যক্ষ ভাবে আরও কয়েক লক্ষ কর্মসংস্থান ছাড়াও এলাকার মানুষের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি হবে চোখে পড়ার মতন।

২০১৪-১৫ আর্থিক বছরে পশ্চিমবঙ্গ বিনিয়োগে চতুর্থ স্থানে উঠে এসেছে।২০১১ থেকে ২০১৬ জানুয়ারি মাস পর্যন্ত নতুন শিল্পে রাজ্যে .৫৫ লক্ষ মানুষের কর্মসংস্থান সুনিশ্চিত হয়েছে। রাজ্য সরকার সরকারি কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে ২০১১ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত ,৩২,০০০ টি নতুন পদের সৃষ্টি করে নিয়োগ প্রক্রিয়া প্রায় সম্পুর্ন হয়ে গেছে যার মধ্যে ৪৩,৪৭২ জন প্রাথমিক এবং মাধ্যমিক শিক্ষক, ৪০,০০০ জন পুলিশ কনস্টেবল এবং ৪০০ জন সাব ইনস্পেক্টর নিয়োগ সম্পূর্ণ হয়েছে। চুক্তির ভিত্তিতে ,৩০০০০ জন সিভিক পুলিশ নিয়োগ সম্পূর্ণ হয়েছে। ২০১৫-১৬ আর্থিক বছরে আরও এক লক্ষ্য ৯০ হাজার সরকারি পদে নিয়োগ মঞ্জুর করেছেন রাজ্য মন্ত্রীসভা যার নিয়োগ প্রক্রিয়া ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গেছে.... এর মধ্যে ৭০ হাজার স্কুল শিক্ষক , ৬০ হাজার গ্রুপ সি এবং ৬০ হাজার গ্রুপ ডি কর্মী। লক্ষ্য ৩০ হাজার সিভিক পুলিশের মাহিনা একলাফে ২৮০০ থেকে ৫৫০০ করে দেওয়া হয়েছে।

শিল্পস্থাপনের অনুকূল পরিবেশ স্থাপনে বিভিন্ন রাজ্য কী ধরনের সংস্কারের পদক্ষেপ গ্রহন করেছে তার ভিত্তিতে ৩২ টি রাজ্য কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল গুলিকে নিয়ে একটি রিপোর্ট তৈরি করেছে কেন্দ্রীয় শিল্প বানিজ্য দফতর বিভিন্ন সংস্থার সাহায্যে এবং সেই রিপোর্টে ৭০.১৪ পয়েন্ট পেয়ে প্রথম হয়েছে গুজরাট এবং আমাদের পশ্চিমবঙ্গ ৪৬.৯০ পয়েন্ট পেয়ে একাদশ স্থান পেয়েছে....আনন্দে আত্মহারা না হলেও যথেষ্ট আশাপ্রদ এই সার্ভে রিপোর্ট.... অন্তত সর্বভারতীয় স্তরে বাংলার শিল্প আবার আলোচনার জায়গায় ফিরে এসেছে লাস্ট বেঞ্চের বাঁধা জায়গা ছেড়ে এটা অন্তত প্রমান করা গেছে।

সম্প্রতি হয়ে যাওয়া বেঙ্গল গ্লোবাল বিজনেস সামিট রাজ্য সরকারের শিল্প নীতির ভুয়সী প্রশংসা করে দেশের প্রায় সমস্ত শিল্পপতিরা রাজ্যে বিনিয়োগে সম্মত হয়েছেন যা এক কথায় অভূতপূর্ব। কেন্দ্রীয় মন্ত্রিরা সন্মেলনে যোগ দিয়ে রাজ্যের অর্থনীতি এবং শিল্পনীতির সাফল্যে উচ্ছাস প্রকাশ করেছেন এবং বাংলার সার্বিক উন্নতির বাস্তব চিত্রকে মুক্ত কণ্ঠে স্বীকার করে মুখ্য মন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির দক্ষতায় অভিভূত হয়েছেন...

পরিশেষে বলি ....... বাংলার মানুষকে ভুল বুঝিয়ে বাংলার অগ্রগতি কে রোখা যাবে না এটা মাথায় রাখলে ভালো করবেন বাংলার শত্রু বাজারি সংবাদ মাধ্যম। যদি ক্ষমতা থাকে তাহলে তথ্য দিয়ে প্রমান করুণ যে সাফল্যের ছবি পরিবর্তনের সরকার নিজেদের পরিশ্রম, মেধা আর সদিচ্ছা দিয়ে একে চলেছেন এই বাংলায় তা মিথ্যা,ভুয়ো.....
আর যদি তা না পারেন তাহলে বাংলার মানুষের কাছে ক্ষমা চেয়ে চুপ করে বসে থাকুন....
সরকারকে তার কাজ করতে দিন।
 
This article is written by my facebook friend Mrs. Sreeparna Roy, as I liked it & mostly agreed with it so I’m just re-publishing it in my blog for wider circulation.


Please see other posts in this blog page by clicking "Home" or from "Popular Posts" / "Archives" sections, and if any remarks please post.
Thanks & Vande Mataram!! Saroop Chattopadhyay.

No comments:

Post a Comment